মা আমার আগে যৌনতা ছিল – 1

ছেলে অয়ন দিকে রাগী চোখে তাকায় মধুরিমা।আজ সকালে বিছানা গুছাতে গিয়ে ছেলের বিছানার নিচে একটা অশ্লীল পর্ণ বই পেয়েছে সে।মায়ের দিকে তাকাতে পারে না অয়ন,ইউনিভার্সিটিতে পড়ে সে,অথচ এখনো মায়ের কাছে বড় হয়নি সে।মামনির রাগ বিশেষ করে মুখ গম্ভীর করে থাকাকে অসম্ভব ভয় পায় সে।পড়াশুনায় খুব ভালো শান্ত বাধ্য ছেলে অয়ন আজ পর্যন্ত মায়ের কাছে কোনো বেচাল ধরা পড়েনি তার অথচ এমন একটা জিনিষ তাও পৃথিবী তে যাকে ভয় আর সমীহ করে,একেবারে হাতেনাতে,বালিশের তলায় ছিল বইটা কাল রাতে দেখে লুকানোর কথা মনে ছিলনা তার।সকালে উঠে স্নানে গেছিল অয়ন।ছেলের বিছানা গুছাতে গিয়ে বালিশের তলে বইটা পেয়েছিল মধুরিমা।স্নান করে ঘরে এসে মায়ের হাতে বইটা দেখে তার দিকে তাকানোর মত সাহস হয়নি অয়নের। “টেবিলে খাবার দিয়েছি,খেয়ে নাও।”কাপড় নাঁড়তে নাঁড়াতে ছেলেকে বলে মধুরিমা।

চোখ তুলে মাকে দেখে অনয়। তারে কাপড় মেলছে তার মা,কাপড় মেলার তার বেশ উঁচুতে হওয়ায় পায়ের পাতায় উঁচু হয়ে কাপড় মেলতে হচ্ছে মধুরিমাকে,লম্বা না মধুরিমা,মাত্র পাঁচ ফিট এক ইঞ্চি, পরনে একপরল করে পরা কালো পাড় বেগুনী শাড়ী,বেগুনী রঙের ঘটিহাতা ছোট ব্লাউজ ফর্সা ভরাট বাহুতে এঁটে বসেছে তার। আঁচল সরে যাওয়ায় একটা স্তন, পেট সহ কোমোরের কাছটা উন্মুক্ত।গরমে বগল ঘেমেছে মধুরিমার ঘটিহাতা বেগুনী ব্লাউজের বগলের কাছটা গোল হয়ে ভিজে আছে অনেকটা।যুবক হয়ে ওঠা অয়নের মুগ্ধ দৃষ্টি মামনির ঘামেভেজা বগলতলি,আঁচল সরে যাওয়ায় ব্লাউজ ঢাকা বাতাবী লেবুর মত বিশাল স্তন মাখনের মত খোলা পেটে কোমোরের একপ্রস্থ মেদের মোহনীয় ভাঁজ,নাভির কাছে আবছা আবছা একঝলক…একটা ঘোর…মায়ের নিতম্ব কত বড় পাশ থেকে পাতলা শাড়ীর তলে বিশাল দাবনার পরিষ্কার ডৌল থামের মত মোটা উরু, তলপেটের খাজ, মায়ের ঢালু মত তলপেটটা যেখানে মিসেছে সেই উরুসন্ধির কাছটা….. “কি হল এখনো দাঁড়িয়ে আছ যে।”

“হ্যা,যাচ্ছি ” দ্রুত খাবার টেবিলে চলে যায় অয়ন।মিষ্টি একটু হাঁসে মধুরিমা।বড় হচ্ছে ছেলে।নারী শরীর,হোকনা তা মায়ের,একটু প্রশ্রয়ই দেয় মধুরিমা।এ বয়ষে পুরুষ হয়ে ওঠা ছেলেদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয় মেয়েরা,একটাই ছেলে তার,মেধাবী সুদর্শন,বাইরের কোনো মেয়ে এই সুযোগে তার সহজ সরল ছেলেটার মাথা খাবে তা হতে দিতে পারেনা সে।মাকে প্রচন্ড ভালোবাসে অয়ন,মধুরিমাও তার একমাত্র অবলম্বন ছেলেটিকে ভালোবাসে প্রানের চেয়ে বেশি।বাবা মায়ের একমাত্র মেয়ে মধুরিমা।মেয়েকে কাছছাড়া করবে না বলে ঘরজামাই হিসাবে গরিবের মেধাবী বয়ষে প্রায় পনেরো বছরের বড় লম্বা বলিষ্ঠ স্বাস্থ্যের সমিরনকে বেছে নেয় মধুরিমার বাবা মা।তখন সবে স্কুল ফাইনাল দিয়েছে মধুরিমা কিছুটা অসম বয়ষী হলেও স্বামীর সাথে একটা বছর বেশ সুখেই ছিল সে।একটু বেশি কামুক ছিল সমিরন প্রথম প্রথম খারাপ না লাগলেও অয়ন পেটে আসার পর মিলন শৃঙ্গার আর ভালো লাগতো না তার।বিষয়টা টের পেয়েছিল মধুরিমার মা। জামাই আর মেয়ের বিছানা আলাদা করে দিয়েছিলেন তিনি।মায়ের কাছে শুত মধুরিমা।এক রাতে ঘুম ভেঙ্গে যেতে ঘর ছেড়ে বারান্দায় এসে স্বামী কে নিচের বারান্দায় দেখে চমকে গেছিল মধুরিমা। নিচে চাকরদের ঘর ওখানে কি করছে সমিরন।একময় তাকে নিচে একটা ঘরের দরজায় টোকা দিতে দেখে সে,ঘরটা দুলির,তাদের দুর সম্পর্কের আত্মিয় মেয়েটা দুমাস হল এসেছে এবাড়িতে।দরজাটা খুলে যায় অন্ধকারে ঢুকে যায় সমিরন বিশ্রী একটা সন্দেহ পা টিপে টিপে নিচে নামে মধুরিমা আস্তে আস্তে যেয়ে দাড়ায় দুলির দরজার সামনে।ফিসফাস গলার আওয়াজ,নিচুঁ হয়ে তালার ছিদ্রে চোখ রাখে সে,ঘরের ভেতর সম্পুর্ন অন্ধকার নয় টিমটিম করে একটা টেমি জ্বলছে ঘরের কোনে,সেই আলোয় পরিষ্কার দেখে মধুরিমা,সমিরন আর দুলি সম্পুর্ন উলঙ্গ দুজন,পা ফাঁক করে চিৎ হয়ে শুয়েছে দুলি তার বুকের উপর শুয়ে…

.আর দেখতে পারেনি মধুরিমা কিভাবে ঘরে এসেছিল জানেনা সে রাগে দুঃখে ঘৃনায় চিৎকার দিয়ে অজ্ঞান হয়ে যেতে মা বাবা সহ ছুটে এসেছিল সবাই,শুধু সমিরন বাদে।ঘটনা কি টের পেয়েছিল সে,টাকা পয়সা গহনা নিয়ে পালিয়েছিল সেরাতেই।কেলেংকারি আর বাড়ায়নি মধুরিমার বাবা দুলিকে বেশ কিছু টাকা পয়সা দিয়ে গ্রামে পাঠিয়ে দেন তারা।আর এবাড়ি মুখ হয়নি সমিরন।বেশ একবছর পরে বাবাকে মাকে বলতে শুনেছে সে টাকা দিয়ে নাকি আমেরিকা চলে যায় লোকটা সেখানে নাকি ঐ দেশের এক মেয়েকে বিয়ে করে সে।টাকা পয়সার অভাব কোনোদিনই ছিলনা,কোলকাতা শহরে তিন তিনটি বাড়ী,প্রতিমাসে বাড়িভাড়া আসে লক্ষাধিক টাকার উপরে,বাবা মাও গত হয়েছে বেশিদিন হয়নি,তাই একাকিত্বের যে যন্ত্রণা খুব একটা পোহাতে হয় নি মধুরিমাকে।এতকাল পুরুষ মানুষের যে অভাব তাও বোধ করেনি মধুরিমা ছেলেকে মানুষ করে তোলার ব্যাস্ততায় বাবা মার সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধানে থেকে তেমন কোনো পুরুষের সংস্পর্শে যাওয়ার সুযোগ বা সুবিধা কোনোটাই ঘটে ওঠেনি তার জীবনে। তারপর ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হয় অয়ন,পরপর মৃত্যু হয় বাবা মার এসময় আরো কাছাকাছি আসে মা ছেলে।একা বাড়িতে ছেলের মধ্যে এক পরিপুর্ণ যুবককে আবিষ্কার করে মধুরিমা,যে তাকে ছাড়া কিছু বোঝেনা কিছু বুঝতেও চায় না।মেয়েদের সাথে খুব একটা না মিশলেও মেয়েদের প্রতি সহজাত আকর্ষণ কম নেই অয়নের,যদিও অন্য সব মেয়ে বা মহিলার চেয়ে নিজের অনিন্দ্য সুন্দরী মায়ের প্রতি টান বেশি অনুভব করে অয়ন। এই আকর্ষণ মায়ের প্রতি ছেলের প্রকৃতি গত হলে কোনো অসুবিধাই ছিলনা কিন্তু এই আকর্ষণের সাথে তিব্র কামনা মিশে থাকায় বিষয়টা বেশ জটিল আর অস্বাভাবিক। মধুরিমার প্রতি অয়নের টানে তিব্র আকর্ষণে পুত্র স্বত্তা ছাপিয়ে পুরুষ স্বত্তার উপস্থিতি অনেকসময় যন্ত্রনাদায়ক ভাবে বেশি এটা যেমন অয়ন বোঝে তেমনি মধুরিমাও অনুভব করে।দুজনি অবচেতন মনে জানে এ পাপ এ অন্যায় তবু মাকে দেখতে তাকে নিয়ে কল্পনার জাল বুনতে অয়নের যেমন ভালো লাগে মধুরিমারও তেমনি ভালো লাগে এই চরম অবৈধ চাওয়াকে প্রশ্রয় দিতে। দিনদিন অয়নের এই কামনা কল্পনা আর স্বপ্নের সিমা ছাড়িয়ে বাস্তবের দিকে হাত বাড়াতে চায়।যৌবন শরীরে আসার শুরুতে স্বপ্নদোষ হত অয়নের,ভাল স্টুডেন্ট অয়ন ক্লাসে ফার্স্টবয়,দুষ্টু বন্ধুরা তাকে ঘিরে থাকে সবসময়।স্কুল কলেজ দুটোতেই কো এড এর সুযোগ ছিলনা,তবে যৌন শিক্ষা,অশ্লীল উপাদান নারী পুরুষের কামকেলির বই ছবীর অভাব ছিলনা স্কুল কলেজে।সেই সব ছবী,গল্প আর বাস্তব নারী বলতে মামনি ফলে সেই ভেজা চরম অশ্লীল স্বপ্ন গুলোতে তার মামনি মধুরিমাই ছিল একমাত্র স্বপ্নকন্যা।অয়ন দেখত মামনি নেংটো হয়ে তার উপরে ফর্সা থাই মেলে দিয়ে,বসছে,আস্তে আস্তে দেবী প্রতিমার মত মুখটিতে মিষ্টি হাঁসি বল্লমের মত তিক্ষ্ণ তার ওটা নরম কিছুর মধ্যে ঢুকে যাচ্ছে,সপ্নের মধ্যে বড় অশ্লীল দেখায় মামনির জিনিষটা পুরু লোমে ভরা কোয়া দুটো ফাঁক হয়ে আছে, যোনী অশ্লীল ভাষায় কি বলে যেন…গুদ,মাং…আহঃ তলপেটে মিষ্টি একটা যন্ত্রণা আরাম আহঃ মামনি…

Read This: ভাই বোন সেক্স গল্প

মধুরিমা।প্রথম প্রথম অপরাধবোধ আরপর আস্তে আস্তে এটাই স্বাভাবিক মনে হয় অয়নের কাছে।মায়ের গায়ের গন্ধ ছেড়ে রাখা বাসি কাপড়,মায়ের ছেড়ে রাখা শায়ার যোনীর কাছটায়,মধুরিমার ব্রেশিয়রে,মাঝেমাঝে মধুরিমার প্যান্টি খুজে পেত অয়ন,স্বপ্নদোষের বদলে ততদিনে ঘনঘন হস্তমৈথুন শুরু হয়েছে তার,না পড়াশোনার কোনো ক্ষতি হয়নি অয়নের বরং দিনদিন রেজাল্ট আরো ভালো হয়েছে তার।আগে বোঝেনি মধুরিমা ছেলের হস্তমৈথুনের বিষয় সম্প্রতি চোখে পড়েছে তার,ছেলের পাজামায়,বিছানার চাদরে স্খলনের দাগ দেখতে পেয়ে ছেলে তার বড় হয়েছে এখন এসব ঘটবেই মেনে নিতে দ্বীধা ছিলনা তার কিন্তু ছেলের হস্তমৈথুনের বিষয়বস্ত যে সে নিজে এটা বুঝে কিছুটা ধাক্কা খেয়েছিল মধুরিমা।কদিন আগে অয়ন ইউনিভার্সিটিতে ছেলের ছেড়ে রাখা পাজামা আর বিছানার চাদরে ঘন বির্যের দাগ পেয়ে দু কোমরে হাত রখে,”দুষ্টু ছেলেটা আমার,”মিষ্টি প্রশ্রয়ের হাঁসিতে ভরে উঠেছিল মধুরিমার মুখ,হাত বাড়িয়ে বালিশ ঠিক করতে যেতেই বালিশের তলে,একটা ছবীর এ্যালবাম পেয়েছিল মধুরিমা।ওটা খুলতেই চমকে গেছিল সে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত শুধু তারই ছবী এ্যালবামে, ছবীগুলো সাধারণ হলেও কিছুটা ঘরোয়া আর খোলামেলা।

দুটো ছবীতে কলাপাতা রাঙা স্লিভলেস ব্লাউজ মধুরিমার গায়ে,একটা ছবিতে পায়ের পাতায় ভর করে কাপড় নাড়ছে মধুরিমা হাত তোলা অবস্থায় স্লিভলেস ব্লাউজের কারনে তার একটা ভরাট বাহু এমনকি চুলে ভরা বগলের তলা পরিষ্কার দৃশ্যমান। ভুরু কুঁচকে ছবীটা দেখতে দেখতে ভাবে মধুরিমা মোবাইল ক্যামেরায় প্রায়ই খুটখাট তার ছবী তোলে অয়ন ছেলের ছেলেমানুষি ভেবে কখনো কিছু বলেনা মধুরিমা। পাতা উল্টে ছবী গুলো দেখে মধুরিমা সব ছবীই প্রায়ই একি রকম সব ছবীতেই তার শরীরের কোনো না কোনো গোপোন অংশ উদ্ভাসিত আঁচল সরা স্তন,দুটি ছবীতে স্তনবিভাজিকা একটা ছবী তার পিছন থেকে তোলা শাড়ী পরা নিতম্বের কাছটা স্পষ্ট।

বাড়ীতে কখনো প্যান্টি পরেনা মধুরিমা, তার বিশাল নিতম্বের মাঝের বিভাজন রেখা একপরল হলুদ শাড়ীর উপর থেকে পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে ছবীতে।এসব ছবী ছেলের পাজামা বিছানায় টাটকা বির্যের দাগ….হা ভগবান,ছেলে কি তাকেই ভেবে,বুঝতে পারছিল মধুরিমা ফর্সা গালে লালের ছোপ পড়েছে তার ভাব বেরুচ্ছে দুই কান দিয়ে সেই সাথে একটা অস্বস্তিকর ভিজে ভিজে অনুভূতি দুই উরুর খাঁজটায়।শরীরে একটা তাপ যেন জ্বর আসছে বিছানায় যেয়ে শুয়েছিল মধুরিমা।কি অসভ্য ছেলে,তাই বলে মায়ের ছবী দেখে,আঙুল কামড়ে কিশোরী মেয়ের মত লজ্জা পেয়েছিল মধুরিমা,কিন্তু কি করবে ছেলেটা,ওরতো কোনো মেয়ে বন্ধুও নাই,মা ই তার সব হাজার হোক পরিপুর্ণ যুবক, এখনো পুর্ন যুবতী সে,তার দেবী সুলভ সৌন্দর্যের কোনো তুলনা নেই অয়নের মুগ্ধ দৃষ্টি দেখে বুঝতে পারে মধুরিমা।তাই ছেলেকে কিছু না বলারই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সেদিন।

কিন্তু আজকের ব্যাপারটা বেশ অশ্লীল আর নোংরা।ছেলে ইউনিভার্সিটিতে বেরিয়ে গেলে বইটা নিয়ে বিছানায় যেয়ে শোয় মধুরিমা।বইটা খুলে মুহূর্তেই মুখটা টকটকে লাল হয়ে ওঠে তার,পাতার পর পাতা নারী পুরুষের নগ্ন মিলনের অশ্লীল সব ছবী কি পরিষ্কার কি খোলামেলা মাথাটা ঝিমঝিম করে মধুরিমার,লেখা গুলো কেমন পড়তে সাহস হয়না তার,আবার কৌতুহলও হয় ওগুলো পড়তে,দ্বীধা দ্বন্দ্ব শেষ পর্যন্ত জয় হয় কৌতুহলের,একটা গল্প দশ মিনিট লাগে মধুরিমার,দশ মিনিট পর নাঁক আর কান দিয়ে আগুনের হালকা বের হয় তার,কি অশ্লীল ভাষা কি নোংরা উত্তেজক বর্ণনা এর মধ্যে দুই উরুর চাপে শাড়ী শায়ার তলে সম্পুর্ন ভিজে উঠেছে যোনীটা,জীবনে যা করেনি এই প্রথমবার তাই করে মধুরিমা,শাড়ী শায়ার উপর থেকেই তার ফুলে ওঠা কিসমিসের মত ভগাঙ্কুরটা কচলে জমে ওঠা উত্তেজনা প্রশমনের চেষ্টা করে সে,আর এই চেষ্টার ব্যার্থতায় তিব্র একটা অপরাধবোধ থেকেই একটা প্রচন্ড রাগ অভিমান ফেনিয়ে ওঠে তার মনের গভিরে।

দুপুরে ইউনিভার্সিট থেকে ফিরে আসে অয়ন।দুপুরে মা ছেলে একসাথে খায় তারা কিন্তু সেদিন অয়নকে খেতে দিলেও নিজে খায়না সে।মায়ের মুখের দিকে তাকিয়ে কিছু বলার সাহস পায় না অয়ন।রাগে যেন থমথম করছে সুন্দর মুখটা বড়বড় চোখ দুটো একটু লাল গোলাপি অধরের রেখা কেঁপে কেঁপে উঠছে মাঝে মাঝে,অপুর্ব মনে মনে ভাবে অয়ন,পরনে গোলাপি একটা শাড়ী,একপরল করে পরা,ঘটি হাতা গোলাপি ছোট ব্লাউজ একমাথা লালচে এলোচুল পিঠময় ছড়ানো।

“শোনো,তোমার সাথে আমার কিছু কথা আছে,খেয়ে ঘরে যাও আমি আসছি।”

মাথা নাড়ে অয়ন,খেয়ে আঁচিয়ে ঘরে যায়।পাঁচ মিনিট পর ঘরে ঢোকে মধুরিমা দরজা লাগিয়ে ছিটকানি তুলে দিয়ে মুখামুখি হয় অয়নের।

মুগ্ধ দৃষ্টিতে মামনি কে দেখে অয়ন,কি অপরুপ সুন্দরী,বয়ষ যেন কোনো ছাপই রাখেনি দেহের কোথাও।

“কতদিন থেকে এসব নোংরা জিনিষ পড়ছো তুমি।ইসস কি অশ্লীল আর নোংরা,বল জবাব দাও,আমিতো ভাবতেও পারিনা তুমি তুমি.. গলার স্বর চড়ে যায় অনেকখানি রাগে উত্তেজনায় থরথর করে কাঁপে মধুরিমা

“ছিঃ ওরকম অসভ্য একটা জিনিষ দেখতে লজ্জা করে না তোমার,কেন ওসব দেখতে হবে কেন,”অয়ন জবাব নাদিয়ে মুখ নিচু কিরে থাকায় রাগের একটা বিষ্ফোরন ঘটে মধুরিমার মাথার ভিতরে, নিজেকে সামলাতে না পেরে

“নেংটো মেয়েছেলে দেখার এতই শখ নে দেখ তবে,” বলে শাড়ী শায়া টেনে কোমোরের উপর তুলে ফেলে মধুরিমা, চমকে উঠে মুখ তোলে অয়ন,লজ্জা শিহরন ভয় সেই সাথে তিব্র উত্তেজনা অপরুপা মাতৃরূপে দেবীর মত যাকে অর্চনা করে ভালোবাসে আবার অবচেতন মনে যাকে প্রচন্ড ভাবে কামনা করে, সেই মামনির কোমোরের নিচ থেকে পা পর্যন্ত সম্পুর্ন নগ্ন উলঙ্গ রুপ চোখ ফেরাতে পারেনা অয়ন, সুন্দর গড়নের সুডৌল দুখানি পা নিটোল হাঁটুর কাছ থেকে ক্রমশ মোটা হতে হতে গোলাপি গোলগোল মাখনের মত ফর্সা উরু যেয়ে মিশেছে যেখানে সেই উরুসন্ধির গোপোন খাঁজ ঢালু মতন মাখন রাঙা তলপেটের নিচে কোমোল কালো শ্যাওলায় ভরা কড়ির মত ত্রিকোণ স্ফিত যোনীদেশ,মধুরিমার যুবতী গোপোনাঙ্গ যা দির্ঘ বাইশটি বছর কোনো পুরুষ দর্শন পায়নি সেই গোপোন ভূমি অয়নের দৃষ্টির সামনে যার প্রতিটা ভঙ্গি,যার শরীররের গন্ধ…. তাকে ওভাবে ঐ অশ্লীল ভঙ্গিতে দেখে কেঁদে ফেলে অয়ন সেইসাথে পাজামার ভিতর লিঙ্গ কেন পাথরের মত শক্ত হয়ে উঠেছে তার এই অপরাধবোধের কশাঘাত জর্জরিত করে তাকে।

মা চলে যেতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে অয়ন,মামনি একি করলে তুমি,আমি যে তোমাকে খুব ভালোবাসি।উহঃ কি সুন্দর সারা জীবনেও এই উত্তেজক মুহূর্তটা ভুলবেনা সে মামনির ওটা কি সুন্দর চুল ওখানে,ওভবে কাঁদতে কাঁদতেই মাতালের মত বাথরুমে ঢোকে অয়ন পাজামা নামিয়ে মুঠো করে ধরে উত্থিত আট ইঞ্চি দৈর্ঘের পুরুষাঙ্গটা,চোখের জলের ভেতরেই দৃশ্যটা ভাসে তার মামনি শাড়ী শায়া তুলে আছে, পাঁচ মিনিট,জগৎ সংসার পাপ পুন্য,অপরাধবোধ সব ভুলে যায় অয়ন,আহঃ আহঃ,একরাশ বির্য,ছিটকে পড়ে বাথরুমের মেঝেতে,যেন মামনির লোমে ঢাকা কড়ির মত ঐ জায়গায় পড়ছে বির্যগুলো,জীবনে কখনো এত পরিমানে বির্যপাত করেনি অয়ন,বাথরুমের মেঝেটা রিতিমত সাদা মনে হয় তার।

ঘটনাটা ঘটিয়ে বুঝেছিল মধুরিমা,বড্ড বাড়াবাড়ি হয়ে গেছে তার।আসলে ঐ অশ্লীল বইটা দির্ঘ বাইশ বছরের চেপে রাখা কামনার বিষ্ফোরন ঘটিয়েছে আজ তার মধ্যে।এত দিনের অবদমন, মনে মনে জানা যে তার যুবক হয়ে ওঠা ছেলে তাকে কামনা করে,অথচ সেটা জেনে বাধা দেয় নি সে বরং এতদিন প্রশ্রয় দিয়েছে ছেলেটাকে,মা হয়ে কখনো বলেনি এটা পাপ।আসলে সে নিজেই কি চাইতো না যে অয়ন তাকে কামনা করুক, অয়ন কে ওভাবে তার সবচেয়ে গোপোন জায়গাটা দেখিয়ে,একটা গোপান যৌনতৃপ্তি কি লাভ করেনি সে।

নিজেকে প্রবোধ দেয় মধুরিমা যা হওয়ার তা হয়ে গেছে তার গোপোন জিনিষটা আর গোপোন নাই ছেলের কাছে।নিজেকে বোঝায় মধুরিমা,আর দেখলেই বা খুব দোষ কি,যে ছেলে তার মায়ের ছবী দেখে হস্তমৈথুন করে তার কাছে…কল্পনায় নিশ্চই তার গোপোন জায়গাটা ভেবেই ওকাজ করে ছেলেটা,তাই ঐ একটুকরো স্থানদেখা আর না দেখা সমান তার কাছে।দেহের ঐ টুকু অংশ গোপোন করে আর লাভই কি তার।আজকের এই ঘটনার পর অয়ন তাকে কি ঘৃনা করবে,না মনে হয়,ভাবে মধুরিমা যদি অয়ন অভিমানে দুরে সরে যায়,যদি তাকে আগের মত ভালোনা বাসে,হাজার হোক বড় হচ্ছে ছেলে, তবে কি দেহ দেবে ছেলেকে,না না, এত তাড়াতাড়ি নয়,আর একটু ধিরে এগুতে হবে তাকে,তবে তাকে ঘিরে ছেলের এই স্বমোহনটা যেন শুধু তাকে ঘিরেই থাকে সে চেষ্টা করতেই হবে তাকে সেইসাথে যত দ্রুত সম্ভব আজকের ঘটনার ক্ষতটা মেরামত করতে হবে তার,এটা নিয়ে অপরাধবোধে ভুগতে দেয়া যাবেনা অয়নকে।সন্ধ্যা হয়ে গেছে অনেক্ষন কোনো সাড়া শব্দ নাই অয়নের একটু ভয় পায় মধুরিমা,পা টিপে টিপে ছেলের ঘরের কাছে যায় সে,দরজায় কান পাতে,কোন শব্দ না পেয়ে আরো ভয় লাগে তার ভেজানো দরজা ঠেলতেই খুলে যায় একটু না পড়ার টেবিলে অয়ন স্বস্তির একটা নিঃশ্বাস ছেড়ে ঘরে ঢোকে মধুরিমা এগিয়ে যেয়ে দাঁড়ায় অয়নের টেবিলের সামনে। মুখ তুলে মাকে দেখে অয়ন,আগের মতই যেব বিকেলে কিছুই ঘটেনি এমন স্বাভাবিক মুখ মধুরিমার,

“এস খেতে এস,দেখি বলে ছেলের মুখটা আঁচল দিয়ে মুছিয়ে দেয় মধুরিমা মুখটা টেনে কপালে চুমু খেতেই মায়ের বুকে মুখ ডোবায় অয়ন।

“মামনি আমি..আমি”

“থাক কিছু হয়নি,”ওসব আর বলার দরকার নেই,চল খাবে চল,”বলে অয়নের হাত ধরে নিয়ে যায় খাবার ঘরে।

Click on Page Number and Read Next Page…